Saturday, April 27, 2019

Story of Devotion to our Parents - পিতা মাতার প্রতি ভালোবাসা ও ভক্তির গল্প





এক পুত্র নিজের বৃদ্ধ পিতাকে রাতের খাবারের জন্য একটা রেস্টুরেন্টে নিয়ে গেল|
খাবার খাওয়ার সময় বৃদ্ধ পিতা অনেকবার খাবার নিজের কাপড়ে ফেলল| ওখানে বসে থাকা অন্য লোকেরা বৃদ্ধকে ঘৃণার নজরে দেখছিল|
কিন্তু বৃদ্ধের পুত্র শান্ত ছিল|
খাবার পর লজ্জা না পেয়ে পুত্র বাবাকে ওয়াশরুম নিয়ে গেলেন| বৃদ্ধের কাপড় পরিষ্কার করল, চেহারা পরিষ্কার করল, চিরুনি দিয়ে চুল আছড়ে চশমা পড়িয়ে বাইরে নিয়ে এলেন|
সবই চুপ করে ওদের দেখতে লাগল| পুত্র বিল দিয়ে বাবাকে নিয়ে বাইরে যাবার জন্য পা বাড়াল, তখনই খাবার রত অন্য এক বৃদ্ধ পুত্রকে বলল তুমি কি কিছু রেখে যাচ্ছো এখানে?
পুত্র জবাব দিল না সরি, আমি এখানে কিছু ছেড়ে যাচ্ছি না|বৃদ্ধ বলল তুমি এখানে প্রত্যেক পুত্রের জন্য ছেড়ে যাচ্ছো একটা শিক্ষা আর প্রত্যেক পিতার জন্য আশা|
সাধারণত আমরা বৃদ্ধ বাবা-মা কে বাইরে নিয়ে যেতে চাই না আর ধিক্কার দিই কি করবে ভাল করে চলাফেরা করতে পার না, ঠিক ভাবে খেতে পারো না, তোমরা বাড়িতেই ঠিক|
আপনি কি ভুলে গেছেন আমরা যখন ছোট ছিলাম, বাবা-মা কোলে করে আমাদের নিয়ে যেত, নিজের হাতে খাইয়ে দিত আর খাবার পরে গেলে বকতেন না, ভালবাসতেন|
তাহলে বাবা-মা বয়স হয়ে গেলে বোঝা লাগে কেন? বাবা-মা দুনিয়াতে আল্লাহর সবচেয়ে বড় নেয়ামত, তাঁদের সেবা করুন, ভালবাসা দিন, কেননা একদিন সবাইকে বৃদ্ধ হতে হবে....

আবূ হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ তার নাক ধুলোয় মলিন হোক, তার নাক ধূলোয় মলিন হোক, তার নাক ধূলোয় মলিন হোক (তথা অপদস্থ হোক) তিনি জনৈক সাহাবী কর্তৃক জিজ্ঞাসিত হলেন, হে আল্লাহর রসূল! কে সে? তিনি (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেনঃ যে ব্যক্তি নিজের পিতা-মাতার কোন একজনকে বা উভয়কে বার্ধক্য অবস্থায় পেল, অথচ (তাদের খিদমাত করে) সে জান্নাতে প্রবেশ করল না। (মুসলিম)

আব্দুল্লাহ ইবনু আমর ইবনুল আস (রাঃ) হতে বর্ণিত। নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, মাতা-পিতার সন্তুষ্টিতে আল্লাহর সন্তুষ্টি (লাভ হয়), তাঁদের অসন্তুষ্টিতে আল্লাহর অসন্তুষ্টি রয়েছে। [তিরমিযী ১৯০০, ইবনু মাজাহ ২০৮৯, ৩৬৬৩, আহমাদ ২১২১০, ২৬৯৮০। হাদিসের মানঃ হাসান (Hasan)]

ইবনু মাসঊদ (রাঃ) হতে বর্ণিত। এক লোক (সহাবী) নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে জিজ্ঞেস করলেন, কোন্ আমালটি সবচেয়ে উত্তম? তিনি বললেনঃ যথা সময়ে সালাত আদায় করা, মাতা-পিতার সঙ্গে সদ্ব্যবহার করা, অতঃপর আল্লাহর রাস্তায় জিহাদ করা। (সহীহ বুখারী  আধুনিক প্রকাশনী- ৭০১৫, ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৭০২৬)

No comments:

Post a Comment

Popular Posts