মজার গল্প, উপন্যাস, গোয়েন্দা কাহিনী, ছোট গল্প, শিক্ষামূলক ঘটনা, মজার মজার কৌতুক, অনুবাদ গল্প, বই রিভিউ, বই ডাউনলোড, দুঃসাহসিক অভিযান, অতিপ্রাকৃত ঘটনা, রুপকথা, মিনি গল্প, রহস্য গল্প, লোমহর্ষক গল্প, লোককাহিনী, উপকথা, স্মৃতিকথা, রম্য গল্প, জীবনের গল্প, শিকারের গল্প, ঐতিহাসিক গল্প, অনুপ্রেরণামূলক গল্প, কাহিনী সংক্ষেপ।

Total Pageviews

Sunday, June 27, 2021

বাঙ্গালির হাসির গল্প - ঘুঘু দেখেছ, ফাঁদ দেখনি – জসীম উদ্দীন – Ghughu dekhecho faad dekhoni - Jasimuddin - Bangalir hasir golpo

 

Funny Story,hasir golpo,mojar golpo,short story,ছোট গল্প,মজার গল্প,হাসির গল্প,জসীম উদ্দীন,Jasimuddin,ঘুঘু দেখেছ ফাঁদ দেখনি,Ghughu dekhecho faad dekhoni

বাঙ্গালির হাসির গল্প - ঘুঘু দেখেছ, ফাঁদ দেখনি জসীম উদ্দীন Ghughu dekhecho faad dekhoni - Jasimuddin - Bangalir hasir golpo

 

বাপ মরে গিয়েছে ঘুঘু আর ফাঁদ দুই ভাই কি একটা কাজে দুই ভাইয়ের লাগল মারামারি ফাদ রেগে বলল, তুই ঘুঘু দেখেছিস কিন্তু ফাঁদ দেখিস নাই

ঘুঘু রাগ করে বাড়ি হতে পালিয়ে গেল বিদেশে গিয়ে সে বাড়ি, সে বাড়ি, কত বাড়ি ঘুরল সবাইকে বলল, আমি ধান নিড়াইতে পারি-পাট কাটতে পারি-গরুর হেফাজত করতে পারি কিন্তু কার চাকর কে রাখে! দেশে বড় আকাল অবশেষে ঘুঘু গিয়ে উপস্থিত হল কিরপন (কৃপণ) ঠাকুরের বাড়ি কিরপন ঠাকুর চাকর রেখে খেতে দেয় না, খেতে দিলেও তার বেতন দেয় না, তাই কেউই তার বাড়িতে চাকর থাকে না

ঘুঘুকে দেখে কিরপন ঠাকুর বলল, আমার বাড়িতে যদি থাকতে চাও তবে প্রতিদিন তিন পাখি করে জমি চাষ করতে হবে, বেগুন ক্ষেত সাফ করতে হবে আর যখন যে কাজ করতে বলব তাই করতে হবে তেঁতুল পাতায় যতটা ভাত ধরে তাই খেতে দিব উহার বেশি চাইলে দিব না মাসে আট আনা করে বেতন দিব উহাতে রাজী হলে আমার বাড়ি থাকতে পার

আর কোথাও কাজ যখন জোটে না, ঘুঘু তাতেই রাজী হল কিরপন ঠাকুর বলল, আমার আরও একটি শর্ত আছে আমার কাজ ছেড়ে যেতে পারবে না কাজ ছেড়ে গেলে তোমার নাক কেটে নিব

ঘুঘু বলল, আমি এই শর্তেও রাজী আছি

কিরপন ঠাকুর পাকা লোক সে গ্রামের লোকজন ডেকে সমস্ত শর্ত একটি কলা পাতায় লিখে নিল তিন পাখি জমি চাষ করতে ঘুঘুর প্রায় দুপুর গড়িয়ে গেল তারপর গোছল করে খেতে আসল কিরপন ঠাকুরের বউ বলল, তেঁতুল পাতা নিয়ে আস

ঘুঘু একটি তেঁতুল পাতা এনে সামনে বিছিয়ে খেতে বসল তেঁতুল পাতায় আর কয়টিই বা ভাত ধরে? একে তো সারাদিনের হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম! এমন ক্ষুধা পেয়েছে যে সমস্ত দুনিয়া গিলে খেলেও পেট ভরবে না সেই তেঁতুল পাতার উপরে চারটি ভাত মুখে দিয়ে ঘুঘু কিরপন ঠাকুরের বৌকে কাকুতি মিনতি করল, আর কয়টি ভাত দিন।

কিরপন ঠাকুর সাথে সাথেই তার কলা পাতায় লেখা শর্তগুলি পড়ে শুনিয়ে দিল বেচারা ঘুঘু আস্তে আস্তে উঠে বেগুন ক্ষেত সাফ করতে গেল

রাতে আবার সেই তেঁতুল পাতায় বাড়া ভাত সারাদিনের হাড় ভাঙ্গা খাটুনি তিন চারদিনেই ঘুঘু একেবারে আধমরা হয়ে গেল তখন চাকরি না ছাড়লে জীবন যায় যায় অবস্থা; কিন্তু যখনই কিরপন ঠাকুরের কাছে চাকরি ছাড়ার কথা বলেছে তখনি সে তার নাকটা কেটে ফেলল নেকড়া দিয়ে কোনো রকমে নাক বেঁধে ঘুঘু দেশে ফিরল

তার ভাই ফাঁদ জিজ্ঞাসা করল, কিরে! তোর নাকটা কাটা কেন?

ঘুঘু কেঁদে সমস্ত ঘটনা খুলে বলল শুনে ফাঁদ বলল, ভাই! তুমি বাড়ি থাক আমি যাব কিরপন ঠাকুরের বাড়ি চাকরি করতে

ঘুঘু কত বারণ করল ফাঁদ তা কানেও নিল না সে বলল, কিরপন ঠাকুর ঘুঘু দেখেছে কিন্তু ফঁদ দেখে নাই আমি তাঁকে ফাঁদ দেখিয়ে আসতেছি

ফাঁদ গিয়ে কিরপন ঠাকুরের বাড়িতে উপস্থিত জিজ্ঞাসা করল, আপনারা কোনো চাকর রাখবেন?

কিরপন ঠাকুর বলল, আমার একজন চাকর ছিল সে অল্প কয় দিন হয় চলে গেছে তা তুমি যদি থাকতেই চাও, তবে আমার কয়েকটি শর্ত আছে তা যদি মেনে নাও তবেই তোমাকে রাখতে পারি

ফাঁদ জিজ্ঞাসা করল, কি কি শর্ত?

কিরপন ঠাকুর কলার পাতায় লেখা আগের চাকরের শর্তগুলি তাঁকে পড়ে শুনাল

প্রতিদিন তিন পাখি করে জমি চষিতে হবে বেগুন ক্ষেত সাফ করতে হবে আর যখন যে কাজ বলব তা করতে হবে! তেঁতুল পাতায় করে ভাত দিব! মাসে আট আনা (৫০ পয়সা) করে বেতন চাকরি ছেড়ে গেলে নাক কেটে রাখব

ফাঁদ সমস্ত শর্ত মেনে নিয়ে বলল, আমারও একটি শর্ত আছে আমাকে চাকরি হতে বরখাস্ত করতে পারবেন না বরখাস্ত করলে আমি আপনার নাক কেটে নিব

কিরপন ঠাকুর বলল, বেশ, তাতেই আমি রাজী

সে পাড়ার আরও দশজনকে ডেকে সাক্ষী মেনে আর একটা কলা পাতায় সমস্ত শর্ত লিখে নিল

সকালে ফাঁদ চলল ক্ষেতে লাঙল চষিতে সে তিন পাখি জমির এদিক হতে ওদিকে দিল এক রেখ, আর ওদিক হতে এদিক দিল এক রেখ এইভাবে সমস্ত জমিতে তিন চারটি রেখ দিয়ে গরু-বাছুর নিয়ে, বেলা দশটা না বাজতেই বাড়ি ফিরে আসল এসেই বলল, ক্ষেতে লাঙল দেওয়া শেষ হয়েছে এখন আমাকে খেতে দাও

কিরপন ঠাকুরের বউ বলল, আগে তেঁতুল পাতা নিয়ে আস

ফাঁদ বলল, একটি ধামা দাও আর একখানা কুড়াল আমাকে দাও ধামা কুড়াল নিয়ে ফাঁদ কিরপন ঠাকুরের উঠানের তেঁতুল গাছটির বড় ডালটি কুপিয়ে কেটে ফেলল

কিরপন ঠাকুরের বউ চেঁচাতে লাগল, কর কি? কর কি? সমস্ত গাছটা তুমি কেটে ফেললে?

কার কথা কে শোনে সেই কাটা ডাল হতে মুঠি মুঠি তেঁতুল পাতা এনে অর্ধেক উঠানে বিছিয়ে দিয়ে বলল, এবার আমাকে ভাত দাও

কিরপন ঠাকুরের বউ সামান্য কয়টি ভাত একটি তেঁতুল পাতার উপর দিতে যাচ্ছিল ফাঁদ বলল, আমার সঙ্গে চালাকি করলে চলবে না শর্তে লেখা আছে তেঁতুল পাতায় করে ভাত দিতে হবে কয়টা তেঁতুল পাতায় করে ভাত দিতে হবে তা লেখা নাই সুতরাং তোমাদের উঠানে যতগুলি তেঁতুল পাতা বিছিয়েছি তার সবগুলি ভরে ভাত দিতে হবে"

কিরপন ঠাকুর তার ভাঙ্গা চশমা জোড়া নিয়ে সেই কলার পাতায় লেখা শর্তগুলি বহুক্ষণ পরীক্ষা করল ফাঁদ যা বলেছে তা সত্য সে তখন বউকে বলল, দাও, হাঁড়িতে যত ভাত আছে তেঁতুল পাতার উপর বেড়ে দাও

একবার ভাত দেওয়া হলে ফাঁদ বলল, আরও ভাত এনে দাও সমস্ত তেঁতুল পাতা ভাতে ঢাকে নাই

কিরপন ঠাকুরের বউ কি আর করে? হাঁড়িতে যত ভাত ছিল সব এনে সেই তেঁতুল পাতায় ঢেলে দিল ফাঁদ বলল, ইহাতে আমার পেট ভরবে না আরও ভাত এনে দাও

আর ভাত হাড়িতে নাই

কিরপন ঠাকুর বলল, কাল তোমার জন্য আরো বেশি করে ভাত রান্না করব। আজ এগুলোই খাও

ফাঁদ কতক খেল-কতক ছিটিয়ে ফেলল তারপর ঢেঁকুর তুলতে তুলতে হাত মুখ ধুতে লাগল

বিকাল হলে কিরপন ঠাকুর ফাঁদকে বলল, বেগুন ক্ষেত সাফ করতে ফাঁদ গিয়ে সব বেগুন গাছ কেটে ফেলল

কিরপন ঠাকুর হায় হায় করে মাথায় হাত দিয়ে বেগুন ক্ষেতের পাশে বসে পড়ল ফাঁদকে বলল, ফাঁদ! তুই তো আমার সর্বনাশ করেছিস

ফাঁদ বলল, তুমি আমাকে সমস্ত বেগুন ক্ষেত সাফ করতে বলেছ সমস্ত বেগুন গাছ না কাটিলে ক্ষেত সাফ হবে কেমন করে?

তার পরদিন কিরপন ঠাকুর ফাঁদকে পাঠাল ধান ক্ষেত নিড়াতে ফাঁদ ক্ষেতের সমস্ত ধান গাছ কেটে ঘাসগুলি রেখে আসল

সেদিন তাকে নদীতে পাঠাল জাল ফেলতে জাল ফেলতে মানে নদীতে গিয়ে জাল দিয়ে মাছ ধরতে ফাঁদ সেই কথাটার উল্টা ব্যাখ্যা করল নদীতে গিয়ে সে কিরপন ঠাকুরের এত হাউসের খেপলা জালটা ফেলে দিয়ে আসল কিরপন ঠাকুর নদীতে গিয়ে এত খোঁজাখুঁজি করল অত বড় নদী কোথায় জাল তলিয়ে গেছে! খুঁজে বের করতে পারল না

সেদিন সন্ধ্যাবেলা তার ছেলেটি ধুলো কাদা গায়ে মেখে নোংরা হয়েছিল কিরপন ঠাকুর বলল ফাঁদ, যাও তো ছেলেটাকে সাফ করে আন

ফাঁদ তার ছেলেটিকে পুকুরের কাছে নিয়ে গিয়ে পানিতে চুবিয়ে ধোপার পাটে দিল তিন চার আছাড় ছেলের হাত পা শরীর ফেটে গেল সে চিৎকার করে কেঁদে উঠল কিরপন ঠাকুর তাড়াতাড়ি ফাঁদের হাত হতে ছেলেকে ছাড়িয়ে নিয়ে তাঁকে বকতে লাগল

ফাঁদ বলল, আমাকে বকলে কি হবে? আপনি ছেলেকে সাফ করে আনতে বলেছেন ধোপার পাটে না আছড়াইলে (আছাড় দিলে) তাকে সাফ করব কিভাবে?

রাত্রে কিরপন ঠাকুর আর তার বউ মনে মনে ফন্দি আঁটে, কি করে এই দুর্মুখ চাকরকে বিদায় করা যায়, কিন্তু কোনো উপায় নাই তাকে বরখাস্ত করলেই কলা পাতায় লেখা শর্তানুসারে সে কিরপন ঠাকুরের নাক কেটে নিবে

পরদিন সকালে কিরপন ঠাকুর ফাঁদকে একটি বড় গাছ ফেড়ে চেলা (চিকন ও লম্বা কাঠের টুকরা) বানাতে হুকুম করল ফাঁদ গাছটি কেটে অনেক গুলো চেলা বানালো তারপর চেলার বোঝা মাথায় করে বাড়ি ফিরল।  

কিরপন ঠাকুরের বৃদ্ধ মা বারান্দায় বসে পান চিবাচ্ছিল ফাঁদ তাঁকে গিয়ে জিজ্ঞাসা করল, খড়ির বোঝা কোথায় নামাব?

সারা উঠান খালি পড়ে আছে যেখানে সেখানে নামান যায় তবুও ফাঁদ এই সামান্য ব্যাপারটির জন্যে বুড়ীকে জিজ্ঞাসা করায় বুড়ি ভীষণ রেগে গেল সে বলল, বুঝতে পার না কোথায় নামাতে হবে? আমার ঘাড়ে নামাও

যেই বলা অমনি ফাদ খড়ির বোঝা বুড়ীর ঘাড়ের উপর ফেলে দিল ঘাড়ের উপর এতগুলো কাঠের ভার সইতে না পেড়ে বুড়ী দাঁত কেলিয়ে মরে গেল

কিরপন ঠাকুর ফাঁদকে কিছু বলতেও পারে না কারণ সে বুড়ীর আদেশ মতোই কাজ করেছে ফাঁদকে বাড়ি হতে তাড়িয়ে দিতে গেলেও সে তার নাক কেটে নিবে ফাঁদকে নিয়া কি করা যায়?

প্রতিদিন সে একটা না একটা অঘটন করে বসে অনেক ভেবে চিন্তে কিরপন ঠাকুর ঠিক করল, সে আর তার বউ তীর্থযাত্রা গিয়ে অন্ততঃ কিছুদিনের জন্য ফাঁদের হাত হতে রক্ষা পাবে যাওয়ার সময় কিরপন ঠাকুর ফাঁদকে বলল, ফাঁদ! আমরা চললাম তুই বাড়ি-ঘর দেখিস"

ফাঁদ জবাব দিল, আর বলতে হবে না তোমরা নিশ্চিন্তে চলে যাও আমি সব দেখব

কিরপন ঠাকুর চলে গেল ফাঁদ তার ভাই ঘুঘুকে ডেকে এনে বাড়ির সর্বেসর্বা হয়ে বসল বাড়িতে আম, জাম, কাঁঠাল, সুপারি, নারিকেল, কত রকমের গাছ দুই ভাই সেই সব গাছের ফল বিক্রি করে অনেক টাকা জমাল তার মধ্যে গ্রামে আসল সেটেলমেন্টের আমিন ফাঁদ কিরপন ঠাকুরের বাড়ি-ঘর, জমা-জমি সকল নিজের নামে লেখিয়ে নিল

কিছুদিন পরে তীর্থ থেকে কিরপন ঠাকুর আর তার বউ দেশে ফিরল ফাদ তাদের বাড়িতে ঢুকতে দিল না সে বলল, বাড়ি তো আমাকে বেচে গিয়েছো দেখ না গিয়ে সেটেলমেন্টের অফিসে, সেখানে বাড়ি আমার নামে লেখা হয়েছে

গচ্ছিত টাকা-পয়সা যা ছিল তা কিরপন ঠাকুর তীর্থে গিয়ে খরচ করে এসেছে ফাঁদের নামে মামলা করার টাকা পাবে কোথায়? আর মামলায় জিতলেই বা কি হবে? কলার পাতায় লেখা যে শর্তে সে ফাঁদের সঙ্গে আটকা পড়েছে তাহা হতে কে তাঁকে রক্ষা করবে?

কিরপন মেল্লার বাড়িতে ফাঁদ আর ঘুঘু সুখে বাস করতে লাগল কিরপন ঠাকুরের উপর কারো কোনো দয়া নাই! কারণ সে বিনা অপরাধে ঘুঘুর নাক কেটেছিল সে গ্রামের কোন মানুষের কোন উপকার করে নাই বা  কাউকেই কোনোদিন আধ পয়সাও দান করে নাই

এই রকম আরো গল্পঃ 

১। বাঙ্গালীর হাসির গল্প – ভাগাভাগি - মোহাম্মাদ জসীম উদ্দীন মোল্লা – Vagavagi– Jasimuddin - Bangalir hasir golpo

২। বাঙ্গালির হাসির গল্প - কিছুমিছু –জসীম উদ্দীন – Kichu Michu– Jasimuddin-Bangalir hasir golpo


No comments:

Post a Comment

Featured Post

মজার গল্প - টেরোড্যাকটিলের ডিম – সত্যজিৎ রায় – Mojar golpo – Pterodactyl er dim - Satyajit Ray

মজার গল্প - টেরোড্যাকটিলের ডিম – সত্যজিৎ রায় – Mojar golpo – Pterodactyl er dim - Satyajit Ray মজার গল্প - টেরোড্যাকটিলের ডিম  – সত্যজিৎ রা...