মজার গল্প, উপন্যাস, গোয়েন্দা কাহিনী, ছোট গল্প, শিক্ষামূলক ঘটনা, মজার মজার কৌতুক, অনুবাদ গল্প, বই রিভিউ, বই ডাউনলোড, দুঃসাহসিক অভিযান, অতিপ্রাকৃত ঘটনা, রুপকথা, মিনি গল্প, রহস্য গল্প, লোমহর্ষক গল্প, লোককাহিনী, উপকথা, স্মৃতিকথা, রম্য গল্প, জীবনের গল্প, শিকারের গল্প, ঐতিহাসিক গল্প, অনুপ্রেরণামূলক গল্প, কাহিনী সংক্ষেপ।

Friday, August 21, 2020

মেয়েদের সম্মান - মজার গল্প – হাসির গল্প – ছোট গল্প

মেয়েদের সম্মান - মজার গল্প  হাসির গল্প  ছোট গল্প

মেয়েদের সম্মান - মজার গল্প হাসির গল্প ছোট গল্প

ফিনল্যান্ডের হেলসিঙ্কি বিশ্ববিদ্যালয় তাদের এক ছাত্রী হেলি উসিকালাকে কয়েক বছর আগে বাংলাদেশে পাঠায় বাংলাদেশের জনসংখ্যা সমস্যা ও ফোকলোর বিষয়ে গবেষণা করার জন্য। বাংলাদেশ মাশাআল্লাহ, জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও ফোকলোর (লোকাচার) সমৃদ্ধির কারণে অনেক দেশের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়েছে।
হেলি উসিকালার তত্ত্বাবধায়ক অধ্যাপিকা আন্নালিনা সীকালা আমাকে মেয়েটির লোকাল রিসার্চ গাইডের দায়িত্ব পালনের অনুরোধ জানায়। আমি সে বিষয়ে দায়িত্ব পালন করি।। 
ঢাকার আজিমপুরের জনসংখ্যা গবেষণা ও তথ্যসংক্রান্ত অফিস ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নানা অফিসের তথ্য যাচাই করে সে খুশি হতে পারে না। নানা গোঁজামিল ও ফাঁকিঝুঁকি দেখে সে ক্ষুদ্ধ হয়। বলে, পয়সা জলে যাচ্ছে। কাজ হচ্ছে শুধু কাগজে পত্রে, বাস্তবে নয়। এইসব অফিসের তথ্যে অনেক ফাকফোকর। যা হোক, সে ঢাকার বস্তিগুলোতে রিকসাওয়ালা ও শ্রমিকদের একাধিক স্ত্রী ও চার পাঁচজন সন্তান দেখে পরিস্থিতিকে জটিল, নিয়ন্ত্রণহীন বিস্ফোরণমূলক বলে মনে করে
এছাড়া একটি রক্ষণশীল মুসলিমপ্রধান দেশে বস্তিজীবন এবং বস্তির যৌনজীবনকে সে কিছুটা নৈরাজ্যমূলক এবং বেশি রকমের স্বাধীন, তবে পুরুষরাই এর সুবিধাভোগী বলে মনে করে
এইসব কারণেই সে শহরে কাজ না করে গ্রামে যেতে চায় কারণ, জনসংখ্যা অফিসগুলোর তথ্য বিভ্রান্তিকর ও অনির্ভরযোগ্য : অন্যদিকে বস্তিজীবনে জনসংখ্যা বিস্ফোরণ বিপুল, তবে এখানকার জীবন বাংলাদেশের সাধারণ জীবনযাত্রার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়।
যৌনজীবনকেও মনে হয় কোন গোষ্ঠী নিজেদের স্বার্থে এভাবে বিন্যস্ত করছে। যা হোক, হেলিকে কিশোরগঞ্জ শহরতলির বগাদিয়া গ্রামে ফোকলোরবিদ মোঃ সাইদুরের বাড়িতে থেকে স্থানীয় দুতিনটি গ্রামে গবেষণা করার সুযোগ করে দেয়া হল। এবার সে খুশি। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কৃষকদের বাড়িতে তাদের প্রতিদিনের জীবনযাত্রার অনুপুঙ্খ বিবরণ রেকর্ড করে তার আলোকে জনসংখ্যাকে নৃতাত্ত্বিক দৃষ্টিতে বিশ্লেষণ শুরু করল। পুত্র সন্তান যে খাদ্যের জন্য হা করা মুখ শুধু নয়, রোজগারের হাতও সেটাও কিছুটা বুঝলো বাংলাদেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধির জন্য প্রায়ই খোচা দিত।
একদিন আমিও রহস্যময় হাসি হেসে বললাম : তা যাই বল, আমরা মেয়েদের সম্মান করতে জানি। তোমাদের দেশেও অত সম্মান মেয়েরা পায় না।
হেলি বলে : কেমন?
আমি : তাহলে শোন। এক বিখ্যাত ব্যক্তি যা বলেছেন সেটাই তোমাকে শোনাই। সেই ব্যক্তির পরিচিত এক ব্যারিস্টার বিলেত ফেরত, উচ্চশিক্ষিত এবং সচ্ছল। তার সাত/আট সন্তান। একদিন ব্যারিস্টারের এক বন্ধু বেড়াতে এসেছে তার বাসায়। নানা গল্পগুজব ও জমাট আড্ডায় এক পর্যায়ে ব্যারিস্টারের বন্ধু বলে : বিদেশযাত্রা ও পাশ্চাত্যের সোহবৎ তোমাকে একটুও বদলাতে পারেনি। সেই আদি অকৃত্রিম প্রতিবছরে একখান সন্তানের জন্মদাতা বাঙালি চাষাই করে রেখেছে।
ব্যারিস্টার : ছি ছি, ও কথা বলো না। ভদ্রলোকের মেয়েকে বিয়ে করে এনেছি। তাকে কি খালি পেটে রাখতে পারি? সে যে হবে তাঁর প্রতি ভারি অসম্মান! হেলি হাসতে হাসতে গড়িয়ে পড়ে। হাসির দমকে তার চোখে পানি এসে যায়।
বলে : খুব হয়েছে বাবা, আর না। 

No comments:

Post a Comment

Popular Posts