মজার গল্প, উপন্যাস, গোয়েন্দা কাহিনী, ছোট গল্প, শিক্ষামূলক ঘটনা, মজার মজার কৌতুক, অনুবাদ গল্প, বই রিভিউ, বই ডাউনলোড, দুঃসাহসিক অভিযান, অতিপ্রাকৃত ঘটনা, রুপকথা, মিনি গল্প, রহস্য গল্প, লোমহর্ষক গল্প, লোককাহিনী, উপকথা, স্মৃতিকথা, রম্য গল্প, জীবনের গল্প, শিকারের গল্প, ঐতিহাসিক গল্প, অনুপ্রেরণামূলক গল্প, কাহিনী সংক্ষেপ।

Friday, August 7, 2020

ছোট গল্প - হাসির গল্প - রম্য গল্প - মজার গল্প - নিমন্ত্রণ


ছোট গল্প হাসির গল্প - রম্য গল্প - মজার গল্প - নিমন্ত্রণ
ছোট গল্প - হাসির গল্প - রম্য গল্প - মজার গল্প - নিমন্ত্রণ
আগের দিনে গ্রামবাংলার ধনী হিন্দু পাড়ার শ্রাদ্ধে বহুলোককে নিমন্ত্রণ করে খাওয়ানো হতো আর ওই অনুষ্ঠানে ব্রাহ্মণদের খাওয়ানোকে মনে করা হতো আসল পুণ্যের কাজ। তাই অনেক ব্রাহ্মণকে বিশেষ নিমন্ত্রণে এনে খুব আদর-যত্ন করে খাওয়ানো ছিল সেকালের রীতি। আর এই বামুনরা খেতেও পারতেন। যাকে বলে গলা পর্যন্ত ভর্তি করে খাওয়া- বামুনরা তেমনি করে খেতেন। তবে এই খাওয়া কয় যাহারে পরেই ছিল আসল মজার চূড়ান্ত পর্ব। যেসব বামুনের খাবার গলা পর্যন্ত উঠে এসেছে তাদের বাছাই করে নিয়ে হতো এই প্রতিযোগিতার পর্ব। গৃহকর্তা তখন শেষ পর্বে উন্নীত বামুনদের খাদ্য গরের গভীরতা পরীক্ষার জন্য খাদক ব্রাহ্মণদের ভোজন-যুদ্ধে আহ্বান জানাতেন। এই যুদ্ধের প্রকৃতি ছিল রকম গৃহকর্তা বলতেন, বামুন ঠাকুর মশায়েরা : আপনাদের মধ্যে এখন যারা দশটি রসগোল্লা খেতে পারবেন তারা প্রত্যেকে দশ টাকা করে পাবেন। টাকার লোতে মরিয়া হয়ে দু'তিনজন এতে সফল হলেন।
গৃহকর্তার পুনর্বার চিৎকার : এবার যিনি পাঁচটা পানতুয়া খেতে পারবেন তিনি পাবেন পাঁচ টাকা। এতেও সফল হলেন এক ব্রাহ্মণ
এবার শেষ পর্ব। গৃহকর্তা ঘোষণা দিলেন : এবার যিনি একখানা আস্ত লেডিকেনিকে গলাধঃকরণ করতে পারবেন তিনিও পাবেন পাঁচ টাকা।
টাকার লোভ বড় লোভ! টাকার মতো মিঠা আর কিছুই না। কথায় বলে : টাকার লোভে কাঠের পুতুলও হাঁ করে। তো, এক মহাপেটুকু ব্রাহ্মণ লেডিকেনি মিষ্টিও অজগর যেমন করে একটা আস্ত ছাগল গেলে তেমনি করে গিলে একেবারে শুয়ে পড়লেন; কিন্তু গৃহকর্তার প্রতিশ্রুত পাঁচ টাকার জন্য হাত উঁচু করে রাখতে ভুললেন না। টাকা হাতে আসার পর মুঠো শক্ত হলো, কিন্তু শরীর নেতিয়ে পড়লো
গৃহকর্তা তার লোকজনদের আদেশ করলেন ; যাও, বামুনকে সাইঙে করে মধুমতী নদীর পাড় পর্যন্ত দিয়ে আস। নদীর ওপারেই তার বাড়ি। সাইঙে করে যেতে যেতে ঝাকিতে পেট খালি হবে। তাতে তিনি ফেরি পার হয়ে বাড়ি ফিরতে পারবেন।
গৃহকর্তার লোকেরা তাকে নদীর পাড়ে রেখে এলো কিন্তু তিনি নড়তে পারলেন না। এক সময় ওইভাবে নদীতীরের বালির মধ্যে ঘুমিয়ে পড়লেন। কিছু পরে নদীতে জোয়ার এসে তাকে ভিজিয়ে দিল। তবু তিনি উঠতে পারলেন না। হঠাৎ জোয়ারে ভেসে আসা পেটফোলা এক মৃতদেহ তার গায়ে এসে ঠেকল। পেটুক ব্রাহ্মণ মৃতদেহের ফোলা পেটে হাত বুলিয়ে বলেন, দাদাও বুঝি আমার মতো নিমন্ত্রণ রক্ষা করে এলেন।

No comments:

Post a Comment

Popular Posts